ওসমানীনগরে ‘ভূয়া’ পুলিশ কর্মকর্তা আটক

ওসমানীনগর(সিলেট)প্রতিনিধি
সিলেটের ওসমানীনগরে ‘ভূয়া’ পুলিশ কর্মকর্তা মো. আবু বকর ছাকীব ওরফে নাজমুস ছাকীবকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ হেডকোয়ার্টাস হতে প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার মধ্য রাতে ওসমানীনগরের রাউৎখাই গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী কামাল মিয়ার বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়। সে চাঁদপুরের সদর উপজেলার আমজদ আলী রোড দাসপাড়ার আবুল হোসাইন ডালীর ছেলে। বর্তমানে ঢাকার ৮৮, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউতে বসবাস করছে। তার বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
পুলিশ জানায়, প্রতারক আবু বকর নিজেকে সরকারি পাবলিক সার্ভিস কমিশনের ৩৭তম বিসিএসে উত্তীর্ণ পুলিশ ক্যাডারের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে বিভিন্ন জায়গা থেকে অর্থ আত্মসাৎ করে আসছিল। বিষয়টি নজরে আসার পর পুলিশ হেডকোয়ার্টার হতে নজরদারীর মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় নিয়ে তাকে সনাক্ত করে তার অবস্থান নিশ্চিত করা হয়। আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ৩৭তম বিসিএসে পুলিশ ক্যাডার হিসেবে এক বছরের মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে পুলিশ একাডেমী সারদা হতে সমাপনী কুচকাওয়াজ শেষ করেছে বলে দাবি করে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রদান করে। পুলিশ তার কাছ থেকে পুলিশের মনোগ্রাম সম্বলিত এশটি মানিব্যাগ, দুটি ব্যাংকের এটিম কার্ড, কয়েকটি সিম কার্ড, স্বর্ণ প্রতিয়মান কানের দুল ও বালা, নগদ ৪ হাজার তেষট্টি টাকা এবং প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার করে। প্রবাসী কামালের সাথে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয়ে সে সখ্যতা গড়ে তুলে এবং তার জন্য বিদেশ থেকে একটি মোবাইল ফোন আনতে বলে। সম্প্রতি প্রবাসী কামাল বাড়িতে আসলে সে মোবাইল ফোনটি নিতে ওই প্রবাসীর বাড়িতে আসে। আজ রবিবার তার বিরুদ্ধে ওসমানীনগর থানার এসআই সুজিত কুমার চক্রবর্তী বাদি হয়ে পেনাল কোড ১৭০ ধারার অপরাধে ১টি এবং প্রতারণার দায়ে প্রবাসী কামাল বাদি হয়ে অপর আরেকটি মামলা দায়ের করেন।
ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম আল মামুন সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে সে বিভিন্ন জায়গায় প্রতারণা করে আসছিল। পুলিশ হেডকোয়ার্টাস থেকে তথ্য পেয়ে আমরা তাকে আটক করতে সক্ষম হই।

আরও