বাকিংহাম প্যালেসে ট্রাম্পকে নিয়ে বিশ্বনেতাদের ঠাট্টা

উত্তর আটলান্টিক নিরাপত্তা জোটের (ন্যাটো) ৭০ বছর পূর্তি উপলক্ষে লন্ডনে চলছে দুই দিন ব্যাপী শীর্ষ সম্মেলন। এই সম্মেলনের প্রথম দিনে গতকাল মঙ্গলবা বাকিংহাম প্যালেসে একটি অনুষ্ঠানে মিলিত হয়েছিলেন জোটের নেতারা।

অনুষ্ঠানের এক ভিডিওতে দেখা যায় জাস্টিন ট্রুডোসহ বিশ্বনেতাদের কয়েক জন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে ঠাট্টা করছেন।

প্রকাশিত ওই ভিডিওতে দেখা গেছে, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ, ব্রিটেনের প্রিন্সেস অ্যান এবং ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট কথা বলছিলেন।

এ সময় বরিস জনসন প্রশ্ন করেন, ‘এজন্যই কি তিনি দেরি করেছিলেন?’ উত্তরে ট্রুডো উপহাস করে বলেন, ‘তার দেরি হয়েছিল কারণ তিনি ৪০ মিনিট ধরে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।’

ট্রুডো বলতে থাকেন, ‘ও হ্যাঁ তিনি ঘোষণা করেছেন…’ এ সময় ম্যাক্রোঁ কানাডার প্রধানমন্ত্রীকে থামিয়ে দিয়ে কিছু একটা বলেন যা শুনে হেসে উঠেন বাকী সবাই।

এ সময় কোনো নেতাই ট্রাম্পের নাম মুখে না নিলেও তারা যে ট্রাম্পকে নিয়েই ঠাট্টা করছিলেন সেটা পরিষ্কার। কারণ মার্কিন প্রেসিডেন্ট সংবাদ সম্মেলনে বেশি সময় দিতেই অভ্যস্ত। যা নিয়ে এর আগেও আলোচনা হয়েছে। মঙ্গলবারও তিনি ৫০ মিনিটের এক সংবাদ সম্মেলন করেন।

এদিকে বুধবার উত্তর আটলান্টিক নিরাপত্তা জোট (ন্যাটো) মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ জানিয়েছেন, বাল্টিক ও পোল্যান্ড নিয়ে রাশিয়ার বিরুদ্ধে ন্যাটোর সামরিক প্রতিরক্ষা জোরদার পরিকল্পনায় তুরস্কের বাধা তুলে ফেলেছে।

লন্ডনে জোটের সম্মেলন শেষে তিনি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ন্যাটো নেতৃবৃন্দ ওয়াইপিজে সন্ত্রাসীগোষ্ঠী নিয়ে কোনো আলোচনা করেননি; তুরস্ক যাদের সন্ত্রাসীগোষ্ঠী মনে করে।

এর আগে তুরস্ক বলেছে, ন্যাটো জোট কর্তৃক কুর্দি সংগঠনকে (ওয়াইপিজি) সন্ত্রাসীগোষ্ঠী হিসেবে ঘোষণা না করলে বাল্টিক নিয়ে ন্যাটোর প্রতিরক্ষা পরিকল্পনায় অংশগ্রহণ করবে না তুরস্ক।

এ দিকে সম্মেলন শেষে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে স্টলটেনবার্গ আরও বলেন, ন্যাটো রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে ভালো সম্পর্ক রাখতে চায়। তিনি বলেন, চীন ভবিষ্যতে অস্ত্র সীমাবদ্ধতা অথবা কমিয়ে আনায় বিষয়ে আলোচনার অংশ হওয়া উচিত।

সূত্র: দ্য টেলিগ্রাফ ও ইয়েনি শাফাক।

আরও