বিপিএলে রংপুর-সিলেটের প্রথম জয়


হারলেই টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়তো দুই দল । কিন্তু মজার বিষয় হলো মৃত্যুকুপে দাঁড়িয়ে থাকা রংপুর আর সিলেট কি-না একই দিনে পেল প্রথম জয়। বলতে পারেন শনির দশা থেকেই মুক্তি পেয়েছে তারা! তাও আবার শনিবারে (২১ ডিসেম্বর)।

কাকতালীয়ভাবে দুই দলের মধ্যে এই জায়গায় দারুণ মিল। দিনের প্রথম ম্যাচে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টানা জয়ে থাকা খুলনাকে আটকে দেয় সিলেট। ব্যবধানটা আবার ৮০ রানের। ভাবা যায়। এক আন্দ্রে ফ্লেচারই করেন অপরাজিত ১০৩। চলমান বিপিএলের প্রথম সেঞ্চুরি।

দ্বিতীয় ম্যাচের চিত্রটাও সে রকম। টানা চার ম্যাচ হেরে খাদের কিনারায় দাঁড়িয়ে থাকা রংপুর টেবিলের নাম্বার ওয়ান দল চট্টগ্রামকে উড়িয়ে দিল ৬ উইকেটে। এই ম্যাচেও নায়ক এক ভিনদেশি-লুইস গ্রেগোরি। তার নামটা যদি গ্রেগোরি না হয়ে এভিন লুইস হতো। তাহলে তো দিনটা হতো ক্যারিবিয়ানদের। যাক সেই কল্পনা না করাই ভালো।

চট্টগ্রাম অবশ্য এই হারে খুব বেশি চিন্তার কারণ খুঁজে পাবে না। কেননা তারা এখনো সবার ওপরে। ৭ ম্যাচ খেলে ৫টিতেই জিতেছে ইমরুল-রিয়াদরা। তাদের পরের নামটি খুলনার। তারাও সুযোগের সদ্ব্যবহার করেছে। ৪ ম্যাচ থেকে ৩ জয়ে ঝুলিতে পুরেছে ৬ পয়েন্ট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স: ২০ ওভারে ১৬৩/৭ (সিমন্স ০, ফার্নান্দো ৭২, ইমরুল ১০, ওয়ালটন ১৬, নাসির ৯, সোহান ২০, মুক্তার ১২, প্লাঙ্কেট ১৭*, রুবেল ২*; মুস্তাফিজ ৪-১-২৩-২, মুকিদুল ৪-০-৪২-১, গ্রেগোরি ৪-০-২৭-২, নবি ৪-০-৩৩-১, সঞ্জিত ৩-০-২৫-১, অ্যাবেল ১-০-১৩-০)

রংপুর রেঞ্জার্স: ১৮.৪ ওভারে ১৬৭/৪ (নাঈম ৪, দেলপোর্ত ৪, অ্যাবেল ২৪, সাদমান ১৬, গ্রেগোরি ৭৬*, মাহমুদ ৩৮*; রুবেল ৪-০-৩৭-২, মেহেদি রানা ৩-০-১৬-১, প্লানকেট ৪-০-৪৬-১, নাসুম ৪-০-২৩-০, মুক্তার ৩.৪-০-৪৩-০)

ফল: রংপুর রেঞ্জার্স ৬ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরা: লুইস গ্রেগোরি।

আরও