অতিসত্বর মার্কিন নাগরিকদের বাগদাদ ত্যাগের আহ্বান

যতদ্রুত সম্ভব ইরাকের বাগদাদ ত্যাগের জন্য সেখানকার মার্কিন নাগরিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে স্থানীয় মার্কিন দূতাবাস। ইরানের অভিজাত বাহিনী রেভল্যুশনারি গার্ডের (আইআরজিসি) কুদস বাহিনীর শীর্ষ কমাণ্ডার মেজর জেনারেল কাশেম সোলাইমানি নিহত হওয়ার ঘটনায় নিরাপত্তা সংকটের আশক্সক্ষায় বাগদাদ ত্যাগের আহ্বান জানিয়েছে দূতাবাস।
ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।
গত সপ্তাহে বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসে হামলা-ভাঙচুর চালায় শতাধিক ইরাকি নাগরিক। মার্কিন দূতাবাসে হামলার ঘটনায় ইরানকে দায়ী করে ‘চরম পরিণতি’ ভোগ করতে বলে হুমকি দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তারপরই সোলাইমানি’র ওপর বিমান হামলা করা হয়।
কুদস বাহিনীর শীর্ষ কমাণ্ডার নিহতের ঘটনায় ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লা খামেনী বলেছেন, যেসব অপরাধী তাদের নোংরা হাত দিয়ে শুক্রবার জেনারেল সোলায়মানির রক্ত ঝরিয়েছে তাদের জন্যে কঠোর প্রতিশোধ অপেক্ষা করছে।
কুদস ব্রিগেডের কমাণ্ডার মেজর জেনারেল কাসেম সোলায়মানি নিহতের পর শুক্রবার এক শোকবার্তায় এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।
ইরানের সর্বোচ্চ নেতা বলেন, বিশ্বের কুচক্রি ও শয়তানি শক্তিগুলোর বিরুদ্ধে বহু বছর ধরে একনিষ্ঠ ও বীরোচিত জিহাদ চালিয়ে গেছেন জেনারেল সোলায়মানি। তিনি দীর্ঘদিন ধরে শাহাদাতের অমীয় সুধা পান করার যে আকাঙ্ক্ষা পোষণ করতেন শেষ পর্যন্ত সেই উচ্চ মর্যাদায় তিনি অধিষ্টিত হয়েছেন; তবে তার রক্ত ঝরেছে মানবতার সবচেয়ে বড় দুশমন ও সবচেয়ে জালিম শাসক যুক্তরাষ্ট্রের হাতে।
আয়াতুল্লা খামেনী বলেন, বিগত বছরগুলোতে জেনারেল সোলায়মানি যে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন তার পুরস্কার হিসেবে তিনি শাহাদাতপ্রাপ্ত হয়েছেন এবং তার চলে যাওয়ায় তার রেখে যাওয়া পথ বন্ধ হবে না।
এছাড়া ইরানের শীর্ষ জেনারেল ও এলিট ফোর্স কুদসের প্রধান কাসেম সোলায়মানিকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র ভয়ঙ্কর কাণ্ডজ্ঞানহীন কাজ করেছে বলে জানিয়েছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফ।
তিনি বলেছেন, জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে যুদ্ধের ঝাণ্ডাবাহী কমান্ডার জেনারেল কাসেম সোলায়মানিকে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে হত্যা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এর মাধ্যমে ওয়াশিংটন একটি ভয়ঙ্কর, কাণ্ডজ্ঞানহীন ও উত্তেজনা সৃষ্টিকারী পদক্ষেপ নিয়েছে।

আরও