লন্ডনে একের পর এক খুন, বাঙ্গালীপাড়ায় আতঙ্ক

লন্ডনে ছুরিকাঘাতে একের পর এক খুনের ঘটনা ঘটছে। একটি খুনের রেশ কাটতে না কাটতেই ঘটছে আরেকটি খুনের ঘটনা। আর এসব খুনের বেশিরভাগ শিকার হচ্ছে উঠতি বয়সী কিশোর, যুবক। ধারালো ছুরি একে একে কেড়ে নিচ্ছে তাজাপ্রাণ। গতকাল লন্ডনের বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকায় ছুরিকাঘাতে প্রাণ গেছে তিনজনের। আর এতে লন্ডনে বসবাসরত সিলেটি অভিভাবকরা সন্তানদের নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।

ইলফোর্ডের সাদেক মিয়া সুরমা নিউজ ডটনেটকে বলেন, প্রায় প্রতি সপ্তাহে লন্ডনের কোথাও না কোথাও নাইফ ক্রাইমের ঘটনা ঘটছে। এতে স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্কিত আমরা।

২০১৮ সালে ছুরিকাঘাতে ও গুলিবিদ্ধ হয়ে ১৩২ জন প্রাণ হারিয়েছেন। আর ২০১৯ সালে ছুরিকাঘাতে প্রাণ গেছে ৮৮ জনের।গোয়েন্দা সংস্থার বিশ্বাস, ছুরিকাঘাতের ঘটনা কোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড নয়। এগুলো প্রত্যেকটি আলাদা আলাদা ঘটনা। জঙ্গি গোষ্ঠীর সঙ্গে ছুরিকাঘাতকারীদের কোনো সংযোগ নেই।

হামলার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ইতোমধ্যেই দু’জনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে তারা কারাগারে রয়েছেন। এছাড়া মঙ্গলবার সকালে যাকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে, তিনি গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। চিকিৎসকরা বলছেন, আহত ব্যক্তির অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান লিউক মার্কস বলেন, এই সপ্তাহে যে ধরনের ঘটনা ঘটেছে, তাতে আমি সজাগ রয়েছি এবং এই সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য উদ্বিগ্নও হয়ে পড়েছি। এই ঘটনাগুলো দেখে যে কোনো বিপদের ব্যাপারে আমাদের সতর্ক হতে হবে।

তিনি আরো বলেন, এখন পর্যন্ত এই ঘটনাগুলো কোনোকিছুর সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে মনে হয়নি। তবে এ ধরনের ঘটনা জনসাধারণের মধ্যে উদ্বেগ বাড়াবে।

আরও