করোনাভাইরাসে অস্ট্রেলিয়ায় প্রথম মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অস্ট্রেলিয়ার এক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। ৭৮ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি সম্প্রতি জাপানে নোঙ্গর করা প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেস থেকে দেশে ফিরেছেন। খবর স্ট্রেইট টাইমস।

স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা অ্যান্ড্রিউ রবার্টসন বলেন, রোববার সকালে দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় পার্থ শহরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

সম্প্রতি ডায়মন্ড প্রিন্সেস থেকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল ওই ব্যক্তিকে। ওই প্রমোদতরী থেকে দেড় শতাধিক অস্ট্রেলীয় নাগরিককে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্যের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা অ্যান্ড্রিউ রবার্টসন বলেন, তার মৃত্যুতে তার পরিবারের প্রতি আমাদের গভীর সমবেদনা। দুর্ভাগ্যজনকভাবে অস্ট্রেলিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে এটাই প্রথম মৃত্যুর ঘটনা।

তিনি বলেন, ডায়মন্ড প্রিন্সেস থেকে কোয়ারেন্টাইনে রাখার পর প্রাথমিকভাবে তাকে হাওয়ার্ড স্প্রিংয়ে পাঠানো হয়েছিল। এরপর সেখান থেকে তাকে পার্থ এলাকার স্যার চার্লস গেইর্ডনার হাসপাতালে নেয়া হলে রোববার সকালে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

ওই ব্যক্তির স্ত্রীও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তার অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। এদিকে, দেশটিতে নতুন করে আরও দুজনের করোনাভাইরাসে আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। সিডনি এবং গোল্ড কোস্টে দুজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। তারা সম্প্রতি ইরান সফর শেষে দেশে ফিরেছেন।

অস্ট্রেলিয়ার সরকারি তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত ২৫ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এদিকে, গত শনিবার অস্ট্রেলিয়া এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইরান থেকে সব বিদেশিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আনা হবে। কারণ সম্প্রতি ইরানে এই ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। দেশটিতে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৯৩ এবং মৃত্যু হয়েছে ৪৩ জনের।

চীনের পর মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। অপরদিকে, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত ২ হাজার ৯৭৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছে ৮৬ হাজার ৫২৯ জন। এছাড়া আক্রান্তদের মধ্যে ৪১ হাজার ৯৫৮ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে। বিশ্বের ৬০টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।

 

আরও