সর্বশেষ

গেল বছর দায়িত্বরত অবস্থায় মারা গেছেন ১৭৯ জন পুলিশ

 গেল বছরে (২০১৯) ১৭৯ জন পুলিশ সদস্য দায়িত্বরত অবস্থায় মারা গেছেন। রোববার পুলিশ মেমোরিয়াল ডেতে সেইসব পুলিশ সদস্যদের পরিবারকে সম্মাননা প্রদান করেন বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল(আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

এর আগে সকাল ১০টার দিকে মিরপুর পুলিশ স্টাফ কলেজ প্রাঙ্গণে পুলিশ মেমোরিয়াল ডে স্মৃতিস্তম্ভে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন স্বরাষ্ট্র সচিব ও আইজিপি। এ সময় বিউগলের করুন সূরে সশস্ত্র সালাম দেয়ার মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানানো হয় নিহত পুলিশ সদস্যদের। এরপর এ কে একে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান শহিদ পুলিশ সদস্যদের পরিবারের সদস্যরা। নিহত পুলিশ সদস্যদের রুহের মাগফেরাতের জন্য দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। তাদের স্মরণে সবাই দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইজিপি বলেন, পুলিশ মেমোরিয়াল ডে অনুষ্ঠানটি অত্যন্ত আবেগঘন। ২০১৯ সালে বাংলাদেশ পুলিশের ১৭৯ জন সদস্যকে আমরা কর্তব্যরত অবস্থায় হারিয়েছি। দেশের জন্য তাদের ত্যাগ বাংলাদেশ পুলিশ কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছে। দেশের যেকোনো দুর্যোগে বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব চরম ধৈর্য্য, নিষ্ঠা ও তাগ্যের সঙ্গে পালন করছেন।

আইজিপি আরো বলেন, এরইমধ্যে নিহত পুলিশ সদস্যদের ডাটাবেজ তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স। শহীদ পুলিশ মুক্তিযোদ্ধা ও কর্তব্যরত অবস্থায় নিহত পুলিশ সদস্যের স্মরণে পুলিশের সব স্থাপনা তাদের নামে নামকরণ করা হচ্ছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন বলেন, ধর্মীয় বলেন আর রাষ্ট্রীয় বলেন সব কাজে এখন পুলিশকে লাগে। সামাজিক মূল্যবোধ যতো কমবে, অপরাধ যতো বাড়বে পুলিশের কাজের ঝুঁকি ততো বাড়বে। নানা ধরনের সামাজিক অপরাধ বেড়েছে। এগুলো পুলিশকে মোকাবিলা করতে হয়।

আলোচনা শেষে শহীদ পুলিশ সদস্যদের পরিবারকে নগদ অর্থ, ক্রেস্ট ও সম্মাননা স্মারক প্রদান করেন আইজিপি। এ সময় বাংলাদেশ পুলিশের ঢাকাস্থ সব ইউনিটের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিবছর ১ মার্চ নিহত পুলিশ সদস্যদের স্মরণে দেশব্যাপী ও ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে পুলিশ মেমোরিয়াল ডে পালন করা হয়।

 

আরও