জঙ্গি মোকাবিলায় সবার আগে ভারত : অমিত শাহ

কেন্দ্রীয় স্বরাস্ত্রমন্ত্রী অমিত শাহ ১১ টা নাগাদ কলকাতা বিমানবন্দরে নেমে রাজারহাটে পৌঁছে নতুন এনএসজি ভবনের উদ্বোধন করেন। আর এই দিনেই রাজ্যের রাজধানী প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠল। প্রতিবাদ দেখাচ্ছে একাধিক বিরোধী দল। বিমানবন্দরের গেট, কৈখালি, পার্ক সার্কাস, যাদবপুর, এন্টালি, মোউলালি, বেহালায় চলছে বিক্ষোভ প্রদর্শন। স্লোগান দেওয়া হচ্ছে গো-ব্যাক অমিত শাহ। বিক্ষোভ সামাল দিতে মোতায়েন রয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

বাম, কংগ্রেস, নকশাল সহ একাধিক বিরোধী দল ও ছাত্র সংগঠন বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি কালো পতাকা নিয়ে শামিল। কলকাতার একাধিক জায়গায় চলছে প্রতিবাদ সমাবেশ। বাম ছাত্র সংগঠন অমিত শাহ সফরের দিনকে ব্ল্যাক সানডে হিসেবে পালন করছে। সন্তোষপুর থেকে যাদবপুর পর্যন্ত প্রতিবাদ মিছিল করেন বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী।

অমিত শাহ এদিন এয়ারপোর্ট থেকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে রাজারহাট পৌঁছে এনএসজি-র নতুন ভবন উদ্বোধন করেন। তাঁর সামনেই চলে জওয়ানদের মহড়া। অমিত শাহ বলেন, এনএসজির- জন্যই দেশের মানুষ নিজেদের সুরক্ষিত মনে করেন। জনসুরক্ষায় সমগ্র বিশ্বের চেয়ে ভারত দু কদম এগিয়ে বলেও দাবি করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী। বলেন, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে জঙ্গিরাও উন্নত প্রযুক্তি ও নতুন পরিকল্পনা নিচ্ছে তাই জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছে মোদী সরকার। আগে সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় আমেরিকা, ইজরায়েলের নাম উঠে আসত। এখন ভারতের নাম সবার আগে উঠে আসে বলেও দাবি অমিতের। কেন্দ্রে মোদীর নেতৃত্বে সবচেয়ে বেশি দেশের সুরক্ষার কথা ভাবা হয়েছে, জওয়ান সুরক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার, বলে দাবি অমিতের।

সিএএ সমর্থনে কলকাতায় শহিদ মিনারে সভা অমিত শাহের। ইতিমধ্যেই একাধিক বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচিতে উত্তাল কলকাতা। দিল্লি সংঘর্ষের জন্যও নিশানা করা হয়েছে অমিত শাহ-মোদীকে। কেন্দ্রীয় সরকার, বিজেপির বিরুদ্ধে সরব বিরোধী রাজনৈতিক সংগঠনগুলি। বাম ও কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দলীয় পতাকা ও ব্যানার ছাড়াই দেশবাসীর স্বার্থে দিনভর লাগাতার বিক্ষোভ প্রদর্শন চলবে।

 

আরও