সকাল থেকে ৬ ঘন্টায় সড়কে প্রাণ হারালেন ১৯ জন

সড়কে মৃত্যুর মিছিল চলছেই। আজ শুক্রবারেই (৬ মার্চ) সকাল থেকে সড়কে ঝরে গেছে ১৯টি জীবন। পৃথক পৃথক দুর্ঘটনায় চারটি জেলায় ঘটেছে এই ঘটনা। হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় যাত্রীবাহী মাইক্রোবাস মহাসড়কের পাশে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খাওয়ার ঘটনায় ৯ জন নিহত হয়েছেন। আহত হন ৪ জন। আজ শুক্রবার (৬ মার্চ) সকাল সাড়ে সাতটার দিকে উপজেলার কান্দিগাঁও এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুর রহমান এই তথ্য জানান। হতাহত লোকজনের নাম-পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তবে তাঁরা সবাই মাইক্রোবাসের আরোহী ছিলেন। আহত লোকজনকে উদ্ধার করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে মাইক্রোবাসে আগুন ধরে ৬ জন দগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন। মাইক্রোবাসের ৪ জন আরোহী আহত হয়েছেন। উপজেলা রামপুরা বাসস্ট্যান্ডের কাছে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার খাটিহাতা বিশ্বরোড মোড় হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাইনুল ইসলাম এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় পিকআপের চালকসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় দুজন আহত হন। ভোরে উপজেলার মেহরাবাড়ী এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত দুজন হলেন নেত্রকোনার ঠাকুরাকোনা গ্রামের পিকআপ ভ্যানের চালক রাজন রবিদাস (২২) ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানার তালাশ কোর্ট এলাকার আবদুস সালামের ছেলে মো. আজিম (২৩)। সাভারে বাস ও ট্রাকের চাপায় মোটরসাইকেলের দুই আরোহী মারা গেছেন। ঢাকা-আরিচা ও আবদুল্লাপুর-বাইপাইল সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত দুজন হলেন রাজধানীর শেওরাপাড়ার কাজী নাজমুল হক (৪১) ও নারায়ণগঞ্জ শিল্প পুলিশের কনস্টেবল আকাশ আহমেদ (২২)।

 

আরও