করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে ফ্রান্সের সব রেস্তোরাঁ-ক্লাব বন্ধ ঘোষণা

ফ্রান্সে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। দেশটিতে নতুন করে আরও ৮০৮ জন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ফ্রান্সের সব রেস্তোঁরা, ক্যাফে, ক্লাব বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড ফিলিপ।

শনিবার (১৪ মার্চ) এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ফ্রান্সের সব রেস্তোরাঁ, ক্যাফে, সিনেমা হল ও ক্লাব শনিবার রাত থেকে বন্ধ রাখা হবে। সেই সঙ্গে যেখানে জনগণের যাওয়ার প্রয়োজন নেই, অর্থাৎ অপ্রয়োজনীয় স্থানগুলো বন্ধ রাখতে হবে।

জরুরি প্রতিষ্ঠানগুলো ছাড়া বাকি সব বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, বাজার, খাবারের দোকান, ফার্মেসি, গ্যাস স্টেশন, ব্যাংক, সংবাদপত্র ও সিগারেটের দোকান খোলা থাকবে। ধর্মীয় উপাসনালয়গুলোও চালু থাকবে। কিন্তু ধর্মীয় অনুষ্ঠান ও সমাবেশ স্থগিত রাখতে হবে।

চীনের হুবেই প্রদেশ থেকে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ রোগে ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত ৪ হাজার ৪৬৯ জন আক্রান্ত হয়েছে। এতে মৃত্যু হয়েছে ৯১ জনের।

বিশ্বের ১২৩টি দেশের ১ লাখ ৫৬ হাজার ৭১ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। আর এতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৮২১ জনে। চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য হয়েছে ৭৪ হাজার ৪৫৯ জন।

করোনাভাইরাসে বর্তমানে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা ইতালির। দেশটিতে এই ভাইরাসে এক হাজার ৪৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার একদিনে এতে আক্রান্ত হয়েছে ১৭৫ জন। তবে মৃত্যুর সংখ্যা তুলনামূলক কমলেও ইতালিতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার বেড়েছে। একদিনে তিন হাজার ৪৯৭ নতুন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর আগে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল দুই হাজার ৫৪৭ জন।

গত ১১ মার্চ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। মহামারি ঘোষণা দিয়ে সংস্থাটির প্রধান ডা. টেড্রস অ্যাধানম ঘেব্রাইয়িসাস বলেন, গত দুই সপ্তাহে এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা উৎপত্তিস্থল চীনের বাইরে ১৩ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।বিভিন্ন দেশের সরকারকে জরুরি ও কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে করোনার প্রাদুর্ভাব থেকে উত্তরণের আহ্বান জানান।

 

আরও