কলকাতায় ফিরেই আইসোলেশনে মিমি ও জিৎ

আতঙ্ক ছিলই। তার মধ্যেই কলকাতায় একজন করোনা আক্রান্তের খোঁজ মেলার পর থেকেই সেই আতঙ্ক বেড়ে গিয়েছে কয়েক গুণ। এর মধ্যেই শ্যুটিং বন্ধ করে তড়িঘড়ি কলকাতায় ফিরেছেন টলিউডের অভিনেতা জিৎ ও অভিনেত্রী তথা সাংসদ মিমি।

লন্ডনে শ্যুটিং করতে গিয়েছিলেন তাঁরা। কিন্তু সতর্কতার জন্য যেহেতু বিদেশি বিমান আসার ক্ষেত্রে বাধা দেওয়া হয়েছে, তাই দ্রুত দেশে ফিরতে হয় তাঁদের। বুধবার সকালেই কলকাতায় ফিরেছেন তাঁরা। দুজনেই আপাতত আইসোলেশনে থাকবেন।

কলকাতা বিমানবন্দরে নেমেই মিমি জানিয়েছেন, তিনি আপাতত তাঁর কোনও আত্মীয়ের সঙ্গে দেখা করবেন না। মিমি জানিয়েছেন, তাঁর বাবার বয়স ৬৫। তাই বাবা-মায়ের সঙ্গে দেখা করবেন না তিনি, সেল্ফ আইসোলেশনে থাকবেন।

মিমি ও জিৎ দুজনেই জানান লন্ডনে তাঁদের শ্যুটিং করতে কোনও অসুবিধা হয়নি। তবে, মিমির কথায়, হিথরো কিংবা দুবাই বিমানবন্দর এত খালি, আগে কখনও দেখিনি।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের ট্রাভেল অ্যাডভাইজারি কমিটি একটি নির্দেশিকা জারি করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, ইয়োরোপিয়ান ইউনিয়ন-এর সদস্য দেশগুলি থেকে কোনও ব্যক্তি ১৮ মার্চের পর আর ভারতে ফিরে আসতে পারবে না। পুনরায় দেশে ফিরতে হলে অপেক্ষা করতে হবে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত। আর সেই জন্যই বাধ্য হয়ে গোটা টিমকে চটজলদি এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।

বাকিংহামশায়ার, বাজির শুটিং চলছিল। সেখানেই ছিলেন দুজনে। কিছুদিন আগেই যান তাঁরা। যাওয়ার আগে মাস্ক পরে ছবিও পোস্ট করেছিলেন মিমি।

এদিকে, কলকাতায় প্রথম একজনের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে।

রাজ্যের পদস্থ এক আমলার ছেলে মারণ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে কাবু৷ ১৫ মার্চ ইংল্যান্ড থেকে কলকাতায় ফেরেন ওই তরুণ৷ বিমানবন্দরে স্ক্রিনিংয়ের সময় করোনার কোনও উপসর্গের দেখা মেলেনি৷ পরে বেলেঘাটা আইডি-তে যেতে বলা হয় তাঁকে৷

সোমবার হাসপাতালে গেলে তাঁকে বাড়িতে কোয়েরান্টাইনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়৷ মঙ্গলবার ওই তরুণকে ফের আইডি হাসপাতালে ডাকা হয়৷ এদিনই তাঁর করোনা পরীক্ষা হয়৷ সন্ধেয় তরুণের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে৷ শুধু ওই তরুণই নন৷ তাঁর মা-বাবা ও গাড়িচালককেও আইডি হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে৷

 

আরও