নিউজিল্যান্ডে করোনায় প্রথম মৃত্যু

 করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নিউজিল্যান্ডে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। দেশটিতে নতুন করে আরও ৬৩ জন প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫১৪। রোববার দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক অ্যাসলে ব্লুমফিল্ড এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৭০ বছর বয়সী এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তার দেহে ইনফ্লুয়েঞ্জা ধরা পড়েছিল।

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের অংশ হিসেবে গত ২৫ মার্চ মধ্যরাত থেকেই সম্পূর্ণ লকডাউন শুরু হয় নিউজিল্যান্ডে। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ড আর্ডান দেশজুড়ে জাতীয় জরুরি অবস্থা জারি করেন।

লকডাউন চলাকালীন দেশটিতে অপ্রয়োজনীয় সেবা, পানশালা, রেস্তোরাঁ, ক্যাফে, জিম, সুইমিং পুল, জাদুঘর, লাইব্রেরি, খেলার মাঠসহ যেসব স্থানে জনসমাগম ঘটে তা বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে সুপার মার্কেট, হাসপাতাল, ওষুধের দোকান, সার্ভিস স্টেশনসহ প্রয়োজনীয় ব্যাংকিং সেবা চালু আছে।

এর আগেই দেশটিতে জনসমাগমের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। অপরদিকে ইতোমধ্যেই যারা নিউজিল্যান্ডে প্রবেশ করেছেন তাদের প্রত্যেককেই ১৪ দিনের জন্য আইসোলেশনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেলফ আইসোলেশনের নীতি সঠিকভাবে পালন না করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে বিশ্বের ১৯৯টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। এখন পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৬ লাখ ৬৩ হাজার ৭৪০ জন। অপরদিকে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৩০ হাজার ৮৭৯ জন। এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ১ লাখ ৪২ হাজার ১৮৩ জন।

 

আরও