গুজবের পর গুজব সতর্ক থাকুন

 করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে ঘরে থাকতে হবে। সেই সঙ্গে কিছু সাধারণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। আক্রান্ত সন্দেহ হলে থাকতে হবে আলাদা এবং সংশ্নিষ্ট সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে দ্রুত যোগাযোগ করতে হবে। যে কোনো তথ্য জানতে হবে বিশ্বস্ত সূত্র থেকে। সর্বোপরি, ভাইরাসটি নিয়ে প্রচলিত স্লোগানটি মনে রাখতে হবে- ভয় নয়, সতর্ক থাকুন; নিজে নিরাপদ থাকুন, অন্যকে নিরাপদ রাখুন।

এখন পর্যন্ত এ পরামর্শই সবার জন্য প্রযোজ্য। আর এ পরামর্শগুলো প্রতিনিয়ত প্রচার করা হচ্ছে সরকারিভাবে। এরই মধ্যে বেসরকারি অনেক প্রতিষ্ঠান করোনা মোকাবিলায় এগিয়ে এসেছে। তারা মাঠে কাজ করে যাচ্ছে। দলগত ও ব্যক্তিগত উদ্যোগেও নানা তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন অনেকে। তবে এতসব প্রচেষ্টার মধ্যেও ভাইরাসটি নিয়ে কেউ কেউ গুজব ছড়াচ্ছেন। এর মধ্যে গত বৃহস্পতিবার রাতের ঘটনাগুলো সারাদেশে আলোচনার কেন্দ্রে রয়েছে।

গুজবে কান দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে একযোগে আজান দেওয়া ও মিছিল করার ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া রং চা পান, কালিজিরা-লবঙ্গ-আদা-এলাচ-গোলমরিচ খাওয়া এবং ঘরে ঘরে উলুধ্বনি দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে। অনেকে বুঝে না বুঝে এসব গুজব আবার প্রচার করছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এতে পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে। এসব ঘটনায় মানুষ শুধু বিভ্রান্তই হচ্ছে না, বাধাগ্রস্ত হচ্ছে করোনা মোকাবিলার সব প্রচেষ্টাও। দেশের মানুষ এখন সব জায়গায় টেলিভিশন দেখছে, ইন্টারনেট ও স্মার্টফোন ব্যবহার করছে। এর মধ্য দিয়ে শুধু শহর এলাকা নয়, সঠিক তথ্য জানার সুযোগ মিলছে প্রত্যন্ত এলাকায়ও। তার পরও এমন গুজব ছড়ানোর ঘটনাকে উদ্দেশ্যমূলক মনে করা হচ্ছে। এ গুজবগুলো আসলে ছড়াচ্ছে কারা।

করোনাভাইরাস নিয়ে সৃষ্ট গুজবে কান দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃহস্পতিবার রাতে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোর বিষয়ে জানিয়েছেন সমকালের সংশ্নিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিরা। চট্টগ্রামের পটিয়া ও কর্ণফুলী উপজেলাসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলায় বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর থেকে শুরু হয় আজান দেওয়া। হিন্দুপল্লি ও মন্দিরে মন্দিরে শঙ্খ ও কাঁসরধ্বনি এবং ঘরে ঘরে উলুধ্বনি শোনা যায়। এ ছাড়া মধ্যরাতে ভূমিকম্প আঘাত হানতে পারে- এমন গুজবে অনেকে ঘর থেকে বাইরে বের হয়ে যান। পটিয়া উপজেলার বাসিন্দা রফিকুল আলম বলেন, একটি ইসলামী সংগঠনের পক্ষ থেকে মসজিদে আজান দেওয়ার কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। একটি ভিডিওবার্তায় আজান দেওয়ার বিষয়টিকে গুজব বলে দাবি করেছেন চট্টগ্রামের জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার অধ্যাপক মুফতি ওবায়দুল হক নঈমী। তিনি বলেন, আমার নামে কারা গুজব ছড়িয়েছে জানি না। পটিয়া পৌর সদরের দক্ষিণঘাটা নুরী জামে মসজিদের ইমাম মোস্তাক আহমেদ রিজভী বলেন, এলাকার অন্য মসজিদগুলো থেকে আজানের শব্দ শুনে আমিও দিয়েছি।

এদিকে, রংপুরে একটি ক্লিনিকে এক নবজাতক জন্মের পর মাত্র পাঁচ মিনিট বেঁচে ছিল। ওই সময় সে বলেছে, কালিজিরা. আদা, লবঙ্গ ও এলাচ একত্রে পানিতে গরম করে খেলে করোনা আক্রমণ করবে না। এই গুজব ছড়িয়ে পড়ে মিঠাপুকুর উপজেলায়। এতে সাড়া দিয়ে অনেক মানুষ এসব খেয়েছেন। আবদুর রহমান নামে এক ব্যক্তি প্রথমে এ ধরনের খবর দেন তার এক স্বজনকে। গোপালপুর ইউপির রেজোয়ান বলেন, তার চাচা এ খবরটি তাকে দিয়েছেন। পরে বাড়িতে সবাই মসলার রস করে খেয়েছেন।

হবিগঞ্জের মাধবপুরে গভীর রাতে মসজিদে মসজিদে আজান দিয়ে মিছিল করা হয়। স্থানীয় ওসি বলেন, তরুণরা রাতের বেলায় বিভিন্ন স্থানে মিছিল করেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে গুজবে মসজিদে আজান, মন্দির ও হিন্দুবাড়িতে উলুধ্বনি দেওয়ার খবর শোনা গেছে। মসজিদে আজান দেওয়ার পর কিছু জনপ্রতিনিধি দলবেঁধে মিছিল করেছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় ইউএনও নাজমা আশরাফী বলেন, মানুষ আতঙ্কিত হয়ে এসব করেছে।

নরসিংদীর বেলাবতে মসজিদ থেকে আজান দেওয়া হয়। মসজিদ থেকে বাড়ি বাড়ি আজান দেওয়া, দুই রাকাত নফল নামাজ পড়া, তওবা করা, কোরআন তেলাওয়াতের ঘোষণাও দেওয়া হয়। আজান ও নামাজের প্রস্তুতি শেষ করার পর বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয় করোনাবিরোধী মিছিল। করোনা থেকে সাবধান, আল্লাহু আকবর স্লোগানে কয়েকশ মানুষ রাস্তায় নেমে আসে। এর আগে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া গুজবে কান দিয়ে বাড়ি বাড়ি কালিজিরা-আদা-লবঙ্গ খাওয়ার হিড়িক পড়ে। ধুকুন্দি জামে মসজিদের পেশ ইমাম জুনাইদ হোসেন ফারুকী বলেন, দেশে যখন মহামারি, আজাব, গজব আসে তখন আজান দিলে আল্লাহপাক এগুলো থেকে বান্দাদের রক্ষা করেন। কিন্তু মিছিল কারা কীভাবে করেছে জানি না। স্থানীয় থানার ওসি বলেন, রায়পুরা থেকে কিছু লোক মিছিল করে বারৈচা এলাকায় এলে তাদের ছত্রভঙ্গ করা হয়। যা হয়েছে গুজবেই হয়েছে বলে তিনি জানান।

ফেনীর সোনাগাজীতে গুজব ছড়িয়ে রং চা খাওয়ার হিড়িক পড়ে এবং মসজিদে মসজিদে আজান ও নফল নামাজের ঘোষণা দেওয়া হয়। আজান দিয়েই রং চা খেতে হবে, নবজাতক এমন পরামর্শ দিয়ে মারা গেছে- এমন গুজবে অনেকেই কান দেয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ছাড়াইতকান্দি হোসাইনিয়া মাদ্রাসার রাস্তায় কয়েকশ মানুষ মিছিল করে জিকির করতে থাকেন। চরছান্দিয়া ইউনিয়নের ইসলামপুর জামে মসজিদের ইমাম ফকির আহমদ বলেন, আমাদের মসজিদের মুয়াজ্জিন আজান দিয়েছেন। মুয়াজ্জিন বলেছেন- অন্য মসজিদ থেকে আজান শুনে তিনি আজান দিয়েছেন। বিপদাপদ থেকে রক্ষা পেতে ইসলামে আজান দেওয়ার বিধান আছে, তবে আগে থেকে ঘোষণা করা হলে কোনো বিভ্রান্তি হবে না বলে ইমাম জানান।

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় গুজব ছড়ানোয় সবরাতু ইসলাম নামে এক মুয়াজ্জিনকে জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বগুড়ার আদমদীঘিতে এক ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন- এমন গুজবে তোলপাড় শুরু হয়। ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বৃদ্ধের জ্বর নিয়ে করোনা গুজব ছড়িয়ে পড়ে। পরে প্রশাসন গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। এ ছাড়া প্রায় প্রতিদিনই স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে ফোন আসছে। ফলে এখানে হুজুগে পরিস্থিতি সামাল দেওয়াই এখন প্রশাসনের মূল চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এ ছাড়া পিরোজপুর, নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার, কক্সবাজারের টেকনাফ, ফেনী এবং লক্ষ্মীপুরের কমলনগর-রামগতিতে একই ধরনের গুজব ছড়ানো হয়। এতে অনেক মানুষ কান দেন এবং অনেকে বিভ্রান্ত হন। এসব থেকে সবাইকে দূরে থাকার আহ্বান জানিয়েছে সংশ্নিষ্ট এলাকার প্রশাসন।

 

আরও