এবার করোনা ভাইরাসের কবলে মার্কিন বিমানবাহী রণতরী- আক্রান্ত নাবিকদের দ্রুত স্থানান্তরে ক্যাপ্টেনের জরুরী বার্তা


সাকের মোস্তাফা চৌধূরী : 
এবার করোনা ভাইরাসের কবলে পড়েছে মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ইউ,এস,এস থিওডোর রুজভেল্টের নাবিকগণ। যুদ্ধজাহাজটির ক্যাপ্টেন ব্রেট ক্রোজিয়ার সংক্রমন রোধে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নাবিকদের অতিসত্বর অন্যত্র স্থানান্তরের জন্য মার্কিন প্রতিরক্ষা সদরদপ্তর পেন্টাগন কতৃপক্ষের কাছে জরুরী বার্তা পাঠিয়েছেন। উক্ত রণতরীতে কর্মরত পাঁচ হাজারের মত নাবিকের মধ্যে সঠিক কতজন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে সে সংখ্যাটা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। গত সপ্তাহে প্রশান্ত মহাসাগরে অবস্থানরত ঐ যুদ্ধজাহাজটিতে প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। এরপর থেকে যুদ্ধজাহাজটি পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরে অবস্থিত মার্কিন ঘাঁটি গোয়ামে নোঙর করা আছে। 

Inline image

চার পৃষ্ঠার চিঠিতে পারমাণবিক শক্তিসম্পন্ন বিমানবাহী ঐ রণতরীর ক্যাপ্টেন বদ্ধ অবস্থায় গুমোট পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে বলেন, “আমরা এখন যুদ্ধক্ষেত্রে নেই। কাজেই নাবিকদের মৃত্যুর প্রয়োজন নেই।” তিনি প্রায় সব নাবিককেই কোয়ারেন্টিনে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন। চিঠিতে তিনি আরো উল্লেখ করেন, “করোনা ভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। এখনই চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া দরকার। জাহাজটিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মতো পর্যাপ্ত জায়গা নেই।আমরা যদি দ্রুত সিদ্ধান্ত না নিই তাহলে আমাদের শ্রেষ্ঠ সম্পদ, অর্থাৎ আমাদের নাবিকদের রক্ষায় ব্যর্থ হবো।”
এদিকে পারমাণবিক চুল্লী সহ আরো অনেক বিধ্বংসী অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদে সজ্জিত থাকার দরূন যুদ্ধজাহাটি পুরোপুরি নাবিকশূণ্য করাও সম্ভব নয়। মার্কিন নৌ বাহিনীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি থমাস মোডলি বলেন, “জাহাজটিতে রয়েছে যুদ্ধের অনেক রকমের সরঞ্জাম, যারমধ্যে আছে ব্যায়বহুল যুদ্ধবিমান, এবং আরো আছে পারমাণবিক চুল্লী। ঐগুলির যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ ও নিরাপত্তার জন্য অবশ্যই প্রয়োজন নির্দিষ্ট সংখ্যক নাবিকের।”
ঐ যুদ্ধজাহাজটিতে ঠিক কিভাবে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
সূত্র- বি,বি,সি

 

 

আরও