নওগাঁয় স্বেচ্ছাশ্রমে এক কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ

নওগাঁ সদরের গ্রামবাসীরা নিজেরা চাঁদা উঠিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে এক কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ করেছেন। উপজেলার কীর্ত্তিপুর ইউনিয়নের হরিরামপুর গ্রামে প্রবেশের রাস্তাটি তৈরি করেছে এলাকাবাসী। এতে করে দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে তাদের।

জানা গেছে, হরিরামপুর গ্রামে প্রবেশ করতে মাত্র এক কিলোমিটার রাস্তার জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ সরকারি দপ্তরে গত কয়েক বছর ধরে ঘুরছিলেন এলাকাবাসী। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। গ্রামবাসীর একটি মাত্র চলাচলের রাস্তা। যা দীর্ঘদিন থেকে সংস্কার না হওয়ায় রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। রাস্তাটি পুকুরের পাশ দিয়ে হওয়ায় প্রায় অর্ধেক রাস্তা পুকুরে চলে গেছে। এতে করে আরও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে রাস্তাটি। ওই রাস্তায় প্রায় দুর্ঘটনা ঘটত। স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত ফসল ঠিক সময় বাজারজাত করা যেত না।

অবশেষে গ্রামবাসীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে নিজেরা চাঁদা তুলে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম কিনে ও শ্রম দিয়ে ওই রাস্তাটি তৈরি করছেন। গ্রামের প্রায় শতাধিক ছোট-বড় সকলে অংশগ্রহণ করে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ করেছেন।

গ্রামের বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম সুজন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমরা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে ধরণা দিয়েছি। ২০১২-১৩ অর্থবছরে ইটসোলিং রাস্তা করে দেয়া হয়। কিন্তু রাস্তাটি পুকুরের পাশ দিয়ে যাওয়ায় রাস্তা ভেঙে পুকুরে চলে গেছে। এতে আমাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

কাজের উদ্যোক্তা রওশন আলী বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারের কাছে অনেকবার রাস্তাটি সংস্কারের দাবি জানানো হয়েছে। কিন্তু কেউ উদ্যোগ নেয়নি। আমরা গ্রামবাসী নিজেরাই উদ্যোগ নিয়ে সবাই সাধ্যমতো চাঁদা রাস্তা এবং পুকুরের পাশে বাঁশের প্যালাসাইডিং এর কাজ করা হচ্ছে।

নওগাঁ সদর উপজেলার কীর্ত্তিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতোয়ার রহমান বলেন, ওই রাস্তাটি পুকুরের পাশে হওয়ায় প্যালাসাইডিং করতে যে খরচ হবে তার বরাদ্দ ইউনিয়ন পরিষদে নাই। তবে এটুকু বলতে পারি ওই রাস্তার জন্য এডিপি প্রকল্পের আওতায় একটা বাজেট হয়েছে। যা গ্রামবাসীকে বলে এসেছি।

 

আরও