যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত বাংলাদেশি তরুণীর আর্তনাদ(ভিডিও সংযুক্ত)

 যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসির হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতরাচ্ছেন করোনা আক্রান্ত বাংলাদেশি তরুণী ফামি মুমতাহিনা। তিনি একজন ডিস্ক জকি। গত ১৫ এপ্রিল তার শরীরে কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়। এরপর তিনি হাসপাতালে ছিলেন। হাসপাতাল থেকে কিছুটা সুস্থ হলে তিনি বাসায় ফিরে আসেন এবং সম্পূর্ণ আইসোলেশনে থাকেন। হঠাৎ রোজার প্রথম দিন তিনি অসুস্থবোধ করেন। তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়।

হাসপাতালের বেডে শুয়ে ফামি মুমতাহিনা ফেইসবুকে নিজের একটি ভিডিও পোস্ট করে ক্যাপশনে লেখেন, আজকে রোজার প্রথম দিন আর আমার জীবনের সবচেয়ে বড় যুদ্ধের দশ দিন। প্রচণ্ড জ্বর হওয়াতে দুইদিন আগে মধ্যরাতে হাসপাতাল ফিরে আসতে হয়েছে। জীবনে এত বড় মনস্টার-এর সাথে কোনো দিন লড়াই করিনি। ডাক্তার বলছে, কষ্টের দিনগুলো শেষের পথে এখন রিকোভারির দিকে যাচ্ছি। গন্ধ আর স্বাদ একটু ফিরে আসতে শুরু করেছে। কিন্তু আমি ভীষণ ক্লান্ত।

তিনি আরো লেখেন, ভিডিওটা গত রাতে তোলা। পোস্ট করার ইচ্ছা ছিল না। কিন্তু আজকে নিউজ দেখলাম, বাংলাদেশে ২৫০ জন ডাক্তার কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত। অনেক খারাপ লাগলো। যদি সব ডাক্তাররা আক্রান্ত হয় কি হবে আমাদের? তখন পুলিশও থাকবে না আমাদেরকে প্রোটেক্ট করতে- তাই ভিডিওটি পোস্ট করলাম, যদি একটু শিক্ষা নিতে পারো এই ভিডিও থেকে।

তিনি বলেন, গত দুইদিন ধরে আইসিইউতে আসছি। রাতে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে আমার মনে হয়, যেন মারা যাব। পানিতে ডুব দিলে যেমন দম বন্ধ হয়ে আসে। এই শ্বাসকষ্ট সেরকমই। তোমরা যারা সিগারেট খাও, তারা খাওয়া বন্ধ করে দাও। ফ্যামিলির কেয়ার করো। তোমরা বাড়িতে অবস্থান করো। তোমরা যারা মনে করো তোমার করোনা ভাইরাস হবে না। তাহলে আমাকে দেখো। আমিও মনে করতাম, আমার করোনা ভাইরাস হবে না।

তিনি আরো বলেন, আমার ফ্যামিলির কাউকে অনেক দিন দেখি না। খুব কষ্ট হয়। প্লিজ স্টে হোম।

নিজের এমন অসুস্থতায় তাকে সাহস জোগানোর জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানায় ফামি মুমতাহিনা। তিনি বলেন, ইউ গাইস আর দ্য বেস্ট। তোমরা ভালো থেকো।

ফামির মতো যুক্তরাষ্ট্রে হাজার হাজার বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। শুক্রবার আরো ৪ জনসহ দেশটিতে বাংলাদেশিদের মৃতের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়েছে।

আরও