করোনায় ফ্রন্টলাইনযোদ্ধা বাংলাদেশী-আমেরিকান দুই বোন

বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা আমেরিকার নিউইয়র্কে সবচেয়ে বেশী। প্রতিদিন হাজারো রুগীর করোনা পজিটিভ হওয়ায় স্থানীয় ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের দায়িত্ব অনেক বেড়ে যায়। তারা ফ্রন্টলাইনে থেকে নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে পরিবার-পরিজন রেখে রুগীদের সেবায় আত্মনিয়োগ করেন। এমনি দুজন বাংলাদেশী-আমেরিকান বোনদের অসামান্য অবদানের কারণে মূলধারার মানুষের কাছে বাংলাদেশী আমেরিকান কমিউনিটির মুখ উজ্জ্বল হয়েছে।

জেবিন আক্তার চোধুরী ও রেবিন আক্তার চৌধুরী। আপন দুই বোন। একজন কর্মরত আছেন নিউইয়র্কের ব্রন্কস মন্টিফিয়োর হসপিটালে সিনিয়র ল্যাব টেকনোলজিষ্ট হিসেবে। আরেকজন কাজ করেন পেসেন্ট কেয়ার এসোসিয়েট হিসেবে। তাদের জন্ম বাংলাদেশের মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল থানার কলেজ রোড এলাকায়। তাদের পিতা জোবায়ের আহমদ চৌধুরী। জেবিন আক্তার চৌধুরী পারিবারিক জীবনে তিন সন্তানের একজন সফল জননী। তার বড় ছেলে ডাক্তার। মেঝো ছেলে নার্সিংয়ে ডিপ্লোমাধারী ও একমাত্র কন্যা ফিন্যান্সে গ্রাজুয়েট। রেবিন চৌধুরীর একমাত্র ছেলে বর্তমানে নিউ ইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টে কর্মরত

করোনা মহামারীর সময় তারা নিজেদেরকে মানবতার জন্য বিলিয়ে দেন। রাত-দিন অসুস্থ রুগীদের সেবায় নিজেদেরকে বিলিয়ে দিচ্ছেন।

তাদের সম্পর্কে জানতে এ প্রতিবেদক কথা বলেন তাদের ভাই রেদওয়ান আহমদ চৌধুরীর সাথে। তিনি বলেন- আমাদের পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন আমাদের বোনদের কারণে গর্বিত। তারা তাদের সেবার মাধ্যমে সবার মন জয় করে নিয়েছেন। আমরা তাদের সর্বাঙ্গীন কল্যাণ কামনা করি। সবার কাছে দোয়া চাই, তারা যেন সুস্থ থাকেন।উল্লেখ্য, তারা জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব টরোন্টর সাবেক সভাপতি জনাব সাদ চৌধুরী খালাতো বোন।

 

আরও