ভারতে প্রথম করোনা হানা দেয় নভেম্বরে, দাবি গবেষকদের

 ভারতে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)। দেশটিতে প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে। এর মধ্যে ভারতের একদল গবেষক নতুন তথ্য সামনে এনেছেন। তাদের দাবি, গত ৩০ জানুয়ারি নয়, ভারতে প্রথম করোনাভাইরাস হানা দেয় গেল বছরের নভেম্বরে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সরকারি হিসাবে গত ৩০ জানুয়ারি ভারতে প্রথম করোনা আক্রান্তের সন্ধান মেলে। ওই দিনই দেশটির প্রথম করোনা রোগী নথিভুক্ত করা হয়। তবে সম্প্রতি হায়দরাবাদের সেন্টার ফর সেলুলার অ্যান্ড মলুকিউলার বায়োলজির গবেষকরা জানিয়েছেন, গত নভেম্বরে ভারতে হানা দেয় করোনা।

তথ্য বিশ্লেষণ করে তারা জানতে পেরেছেন, সম্ভবত গত ২৬ নভেম্বর তেলাঙ্গনাতে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়। তারপর সেখান থেকেই ক্রমশ অন্যত্র ছড়িয়ে পড়ে প্রাণঘাতী এ ভাইরাস।

গত ৩০ জানুয়ারি কেরলে চীনফেরত এক শিক্ষার্থীর শরীরে প্রথম করোনাভাইরাসের উপস্থিতির প্রমাণ মেলে। এর আগে ভারতে কোনো করোনা পরীক্ষা করা হয়নি। তাই নভেম্বর থেকে দেশে করোনা সংক্রমণের বিষয়টিও সামনে আসেনি বলে গবেষকদের মত দিয়েছেন। বর্তমানে করোনা রোগীদের শরীরের নমুনা পরীক্ষার পর তারা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

এদিকে ভারতে প্রতিদিনই করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে যেমন বাড়ছে, তেমনই সুস্থ হয়ে ওঠার হার সামান্য হলেও কমেছে। গত বুধবার পর্যন্ত ভারতে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার হার ছিল ৪৮.৩১ শতাংশ, যা বৃহস্পতিবার কমে হয়েছে ৪৭.৯৯ শতাংশ।

ভারতে এখন পর্যন্ত মোট ২ লাখ ২৬ হাজার ৭১৩ জন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এতে মোট মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৩৬৩ জনের। আর ১ লাখেরও বেশ করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

 

আরও