বাড়ির সামনে লাশ ফেলে পালানোর সময় অ্যাম্বুলেন্সচালক আটক

 পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় জহুরুল ইসলাম (৪১) নামে এক ব্যক্তির লাশ ফেলে পালানোর সময় অ্যাম্বুলেন্সচালক নিয়ামত আলী (৪২)কে আটক করেছে স্থানীয়রা। শনিবার দুপুরে পাকশী ইউনিয়নের নতুন রূপপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃত নিয়ামত আলীর বাড়ি ঈশ্বরদীর মুশুড়িয়াপাড়া। তিনি পাবনার পাথরতলা থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে লাশ এনে মৃত জহুরুলের পৈত্রিক বাড়ির সামনে ফেলে রেখে পালানোর চেষ্টা করলে জনতার হাতে ধরা পড়ে।

মৃত জহুরুল ইসলামের বাড়ি নতুন রূপপুর আখ সেন্টারের কাছে। তার পিতার নাম শাহদত ইসলাম। তার প্রথম স্ত্রী শারমিন খাতুন সাথী ১ ছেলে ও ১ মেয়ে নিয়ে পৈত্রিক বাড়িতে বসবাস করেন।

অন্যদিকে জহুরুল ছোট বউ শান্তনা ও তার গর্ভের ১ ছেলে ও ১ মেয়ে নিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া করে থাকতেন। সম্প্রতি জহুরুলের পাবনার পাথরতলায় থাকতেন।

আটক নিয়ামত আলী এক প্রশ্নের জবাবে পাথরতলার জনৈক ব্যক্তির নির্দেশে লাশ পৌঁছে দিতে এসেছে বলে জানায়। জহুরুলের গলায়, কানের নিচেসহ বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার মৃত্যুর ঘটনা রহস্যজনক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন গ্রামবাসী জানিয়েছেন, জহুরুল মাদক সিণ্ডিকেটের সঙ্গে জড়িত ছিল বলে অনেকের ধারণা। ব্যবসায়িক দ্বন্দ্বের কারণে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করতে পারে।

এ ব্যাপারে ঈশ্বরদী থানার ওসি বাহা উদ্দিন ফারুকী বলেন, জহুরুলের মৃত্যুর রহস্য উদ্ঘাটন ও প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব। জহুরুলের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

আরও