অসহায়দের সাহায্য করে নিজেই না খেয়ে থাকছেন রানু মন্ডল

কলকাতার রানাঘাটের স্টেশনের ভিক্ষুক থেকে মুম্বাইয়ের রেকর্ডিং স্টুডিওতে জায়গা করে নিয়েছিলেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ার বদৌলতে রাতারাতি সেলিব্রেটি হয়ে গেছেন। বর্তমান সময়ের একটি আলোচিত নাম রানু মণ্ডল।

করোনার দুর্যোগে রানু মণ্ডলও দাঁড়িয়েছিলেন অসহায় মানুষদের পাশে। নিজের এলাকার গরিবদের মাঝে চাল, ডাল বিতরণ করেছেন তিনি। কিন্তু এবার এলো দুঃসংবাদ। আবারও অভাবের মধ্যে পড়েছেন রানু। মাস দুয়েক আগেও তার ঘরে খাবারের সংকট ছিলো না, তখন অন্যদের তিনি খাবার দিয়েছেন। আর এখন তার ঘরেই তৈরি হয়েছে খাবারের সংকট।

আবারও অভাবে দিন কাটাচ্ছেন রানাঘাটের রানু মন্ডল। ভারতীয় এক গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, আগের মতোই নাকি অনাহারে দিন কাটছে তার। চিড়া মুড়ি খেয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে তাকে। পাড়া-প্রতিবেশীরা সাহায্য করলে সেই খাবার খেয়েই দিন কাটছে। না খেয়েও থাকতে হচ্ছে কোনো কোনো দিন।

করোনার দিনে কেউ খোঁজ নিতে আসে না রানুর। অবাক করার মতো বিষয়, রাতারাতি যেমন সেলিব্রিটি হয়েছিলেন রানু। এভাবেই চোখের পলকে গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ড থেকে তার নাম মুছে যেতে চলেছে।

গত বছর ২০ জুলাই সোশ্যাল মিডিয়ায় লতা মঙ্গেশকর গাওয়া একটি গান গেয়ে রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে যান রানু। একমাসে গানটির ভিউয়ারের সংখ্যা প্রায় কোটি ছুঁয়ে দেয়। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সাধারণ মানুষ তো বটেই বিভিন্ন গুণি শিল্পীরা গায়িকার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়। এরপর আর পিছে ফিরে তাকাতে হয়নি রানুকে। পেয়েছেন বলিউডের সিনেমায় গান গাওয়ার সুযোগ। কিন্তু এই করোনার দিনে আবারও সেই স্টেশনে ফিরে যাওয়ার দশা হয়েছে তার।

 

আরও