ভুতের ভয়ে ইংল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন না পাকিস্তানের এই ক্রিকেটার!

আগেই ঘোষণা দেয়া হয়েছিল, পাকিস্তানের ইংল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন না তিন ক্রিকেটার। তারা হলেন মোহাম্মদ আমির, হারিস সোহেল এবং হাসান আলি। হাসান আলি ইনজুরিতে। মোহাম্মদ আমির আগেই টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন। টি-টোয়েন্টিতে খেলার কথা থাকলেও আগস্টে তার পারিবারিক একটা অনুষ্ঠানের কারণে নিজেই নাম প্রত্যাহার করে নেন।

কিন্তু ব্যাটসম্যান হারিস সোহেল কেন নিজের নাম প্রত্যাহার করে নিলেন? তিনি নিজেকে কেন এই সিরিজ থেকে প্রত্যাহার করে নিলেন, সেটা একটা রহস্যই। পিসিবি শুরুতে জানিয়েছে, হারিস সোহেল সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত কারণে এই সিরিজ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করেন। তবে, সেই ব্যক্তিগত কারণটা কি? তা জানা যায়নি।

যদিও পরে পিসিবি আরও একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে যে, করোনা মহামারির কারণে ক্রিকেটারদের ওপর স্বাধীনতা দেয়া হয়েছিল সিরিজে খেলতে যাওয়া না যাওয়ার ব্যাপারে। সে কারণেই হয়তো নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেন হারিস সোহেল।

কিন্তু মূল কারণ এগুলোর কিছুই নয়। শেষ পর্যন্ত হারিস সোহেলের ইংল্যান্ড সফরে না যাওয়ার কারণ জানা গেলো। স্রেফ ভুতের ভয়েই নাকি ইংল্যান্ড সফর থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন হারিস।

সত্যিই কি তাই? পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা ইংল্যান্ড সফরে যেতে হবে একা একা। সঙ্গে পরিবারের কোনো সদস্যকে তারা নিতে পারবেন না। করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকির কারণেই এই নির্দেশনা জারি করা হয় পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের ওপর। এই নির্দেশনা জানার পরই নাকি নিজেকে সফর থেকে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন হারিস।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার একটি রিপোর্টেই জানা গেছে আজ এই তথ্য। কেন? হারিস সোহেল এতটা ভুতের ভয় পান? সে কারণও জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

সেখানে লেখা হয়েছে, ২০১৫ বিশ্বকাপের সময় নিউজিল্যান্ডে নিজের হোটেল রুমে ভুতের কবলে পড়েছিলেন বলে দাবি করেন হারিস সোহেল। এবং একই সঙ্গে তিনি পিসিবির কাছে আবেদন করেন, তার সঙ্গে যেন তার স্ত্রীকেও থাকতে দেয়া হয়। কারণ, একা একা থাকা তার পক্ষে মোটেও সম্ভব নয়।

এরপর পিসিবিও তার আবেদন কবুল করে নেয় এবং প্রতিটি বিদেশ সফরেই তার সঙ্গে তার স্ত্রীর সফরের বিশেষ অনুমতি দেয়া হয়। কিন্তু এবার যখন করোনার কারণে একা সফরের বিষয়ে নির্দেশনা জারি করা হলো, তখন নিজেকে তিনি সরিয়ে নিলেন সফর থেকে। কারণ, বিদেশে গিয়ে একা থাকার তার পক্ষে নাকি মোটেও সম্ভব নয়।

 

আরও