চীন অন্তত ৪০ জন সেনা হারিয়েছে

কাশ্মীর অঞ্চলের লাদাখে চলতি সপ্তাহে বিতর্কিত সীমান্তে ভারতের সঙ্গে সংঘর্ষে চীন কমপক্ষে ৪০ সেনা সদস্যকে হারিয়েছে বলে দাবি করেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের একজন মন্ত্রী। ভারতীয় গণমাধ্যমে এর জানানো হয়েছিল, গত সোমবারের ওই সংঘর্ষে ভারতের ২০ সেনা ছাড়াও চীনের ৪৩ জন হতাহত হয়।

হিমালয়ের পশ্চিমাংশে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১৪ হাজার ফুট উচ্চতায় অবস্থিত গালওয়ান উপত্যকার ওই সংঘর্ষে ভারতের ২০ সেনা নিহত ছাড়াও আরও অন্তত ৭৬ জন আহত হওয়ার কথা জানা গেছে। তবে ওইদিনের ঘটনায় নিজেদের ক্ষয়ক্ষতি এবং সেনা সদস্যদের হতাহতের বিষয়ে এখনও কিছু জানায়নি চীন।

দেশ দুটি এরমধ্যে সীমান্তে সামরিক উপস্থিতি জোরদার করেছে। গতকাল শনিবার গভীর রাতে দেশটির গণমাধ্যম নিউজ এইটিনে সম্প্রচারিত সাক্ষাৎকারে সড়ক ও পরিবহন মন্ত্রী ভি কে সিং বলেন, আমাদের (ভারতীয়) পক্ষ থেকে যদি ২০ জন শহীদ হয়, তবে তাদের (চীন) দিক থেকে কমপক্ষে দ্বিগুণ হতাহত হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী ভারতের সাবেক সেনাপ্রধান ভিকে সিং অবশ্য তার এমন দাবির সপক্ষে প্রমাণ হাজির করেননি। তবে তিনি বলেন, ১৯৬২ সালের যুদ্ধ ছাড়াও যে কোনো ধরনের যুদ্ধের হতাহতের কথা চীন যে কখনোই মেনে নেয় না তার ঐতিহাসিক ভিত্তি তো রয়েছেই।

১৯৭৬ সালের পর দুই পারমাণবিক দেশের ভাগাভাগি করা ডি-ফ্যাক্টো সীমান্তে ১৫ জুনের সহিংস সংঘাতের পর চীনের যেসব সেনারা ভারতীয় ভূখণ্ডে আটকা পড়ে তাদের ভারতীয় পক্ষ হস্তান্তর করেছে বলে জানান সিং। চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যম চীনের দিকেও হতাহতের ঘটনা ঘটেছে উল্লেখ করলেও বিস্তারিত জানায়নি।

সামরিক উত্তেজনা চরমে ওঠার পর উত্তেজনা প্রশমনে দুই পক্ষের কমান্ডারদের মধ্যে আলোচনা চললেও সীমান্তের বেশ কয়েকটি এলাকায় উভয় পক্ষের সেনারা মুখোমুখি অবস্থান নিয়ে আছে বলে জানাচ্ছে রয়টার্স। শনিবার সারাদিন দেশ দুটি পরস্পরের বিরুদ্ধে এলএসি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছে।

 

আরও