করোনা কেলেঙ্কারির দায় সরকার এড়াতে পারে না: জোনায়েদ সাকি

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) শনাক্তের পরীক্ষা নিয়ে যে কেলেঙ্কারির ঘটনা ঘটেছে তার দায় সরকার এড়াতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) গণসংহতি আন্দোলনের উদ্যোগে সকল মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা, স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতির রাঘব বোয়ালদের গ্রেফতার এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও অধিদফতরের ডিজির অপসারণের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচিতে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জোনায়েদ সাকি বলেন, ইতালি থেকে যেসব প্রবাসী বাংলাদেশে ফিরে এসেছেন, তারা রিজেন্ট কিংবা জেকেজি হাসপাতালে করোনার পরীক্ষা করাইনি। তারা অন্য হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা করেছেন। তার মানে, অন্যান্য হাসপাতালেও করোনার ভুয়া টেস্ট এবং সেই টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট দেয়া হচ্ছে। ফলে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। এর দায় কোনোভাবেই সরকার এড়াতে পারে না। এর দায় সরকারকে নিতে হবে।

অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তারা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরে অবিলম্বে স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক ও অন্যান্য দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের পদত্যাগ দাবি করেন।

কর্মসূচিতে আরও বক্তব্য রাখেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর, বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক বজলুর রশীদ ফিরোজ, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণফোরামের অন্যতম কেন্দ্রীয় নেতা জগলুল হায়দার আফ্রিক, রাষ্ট্রচিন্তার ফরিদুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের নির্বাহী সমন্বয়কারী (ভারপ্রাপ্ত) আবুল হাসান রুবেল, রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য ফিরোজ আহমেদ, তাসলিমা আখতার, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য বাচ্চু ভূঁইয়া, মনির উদ্দীন পাপ্পু, শ্যামলী শীল, জুলহাসনাইন বাবু, অ্যাডভোকেট জান্নতুল মরিম তানিয়া ও দীপক রায় প্রমুখ।

 

আরও