নেপালে ভয়াবহ বন্যা ও ভূমিধস, ১৩২ জনের প্রাণহানি

অতি বৃষ্টিপাত ও আত্রাই নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় নাটোরের সিংড়ায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। পানিবন্দি পরিবারের অনেকে আত্মীয় ও প্রতিবেশীদের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। অনেকে আশ্রয়কেন্দ্রে আসতে শুরু করছে। ইতিমধ্য প্রায় ৫০টির মত আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রেখেছে উপজেলা প্রশাসন।পৌর এলাকার ৪ টি কেন্দ্রে শতাধিক পরিবার আশ্রয় গ্রহণ করেছে।

উপজেলার ১২ টি ইউনিয়নের ৮টি ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। বন্যায় আত্রাই, গুরনই, বারনই এবং নাগর নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সিংড়া পয়েন্টে মঙ্গলবার সকালে ৬৫ সে. মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে সিংড়া-কলম সড়কের বলিয়াবাড়ী এবং নুরপর এলাকার রাস্তা। যেকোন মুহূর্তে ধসে যেতে পারে এ রাস্তাটি। এছাড়াও রোপা আমন ও ৫ শতাধিক পুকুর ভেসে গেছে। তাছাড়া বিলের ঘাস ডুবে যাওয়ায় খাদ্য সঙ্কটে রয়েছে গবাদিপশু। অনেক স্কুল, কলেজ, হাটবাজার, গ্রামীণ রাস্তা বন্যার পানিতে নিমজ্জিত।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার ওয়ালী উল্লাহ মোল্লাহ জানান, বন্যায় মৎস্য খাতে প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। ৪৬৮ টি পুকুর ডুবে গেছে। প্রায় ২১৩ হেক্টর পুকুর ক্ষতিগ্রস্ত।

সিংড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাসরিন বানু জানান, সিংড়া পৌর এলাকা এবং উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্য তাজপুর, শেরকোল ও কলম ইউনিয়ন ঝুঁকিপূর্ণ। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য ৫০টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত করা হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রে গবাদি পশুসহ পরিবার আশ্রয় নিচ্ছে।

 

আরও