অনুমোদন নেই, অসঙ্গতিপূর্ণভাবেই চলছিল চিকিৎসা কার্যক্রম

রংপুরে স্বাস্থ্যসেবা খাতের শৃঙ্খলা ফেরাতে বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে জেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এরই অংশ হিসেবে অনুমোদন না থাকা, অসঙ্গতিপূর্ণ চিকিৎসা কার্যক্রম ও মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা না থাকায় চার প্রতিষ্ঠানকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে রংপুর নগরীর ধাপ এলাকায় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফরিন জাহানের নেতৃত্ব ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এতে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কর্মকর্তা ও সিভিল সার্জনের প্রতিনিধি অংশ নেন। অভিযানে আপডেট ক্লিনিক, ল্যাবএইড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, রোজ হাসপাতাল ও ইসলামী ব্যাংক কমিউনিটি হাসপাতালকে দুই লাখ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করে আদালত। একই সাথে প্রতিষ্ঠানগুলোকে মৌখিকভাবে সর্তক করা হয়।

সিভিল সার্জনের অনুমোদন না নিয়ে অসঙ্গতিপূর্ণভাবে চিকিৎসা প্রদান ও মেডিকেল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা না থাকাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ওই চার প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা হয়েছে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফরিন জাহান।

তিনি জানান, জেলা প্রশাসনের আওতায় নিবন্ধনহীন হাসপাতাল ও ক্লিনিকের বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর পর থেকে শোনা যাচ্ছে ৭০ শতাংশ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নিবন্ধন নেই। বিভিন্নভাবে রোগীদের সাথে প্রতারণা ও হয়রানি করে এসব প্রতিষ্ঠান অনিয়নের মধ্য দিয়ে চলছে। স্বাস্থ্যসেবা খাতের এই বিশৃঙ্খলা রোধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

রংপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের একটি সূত্র জানায়, নগরীতে মাত্র ২২৯টি বেসরকারি ক্লিনিক, হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অনুমোদন থাকলেও প্রায় ৫০০ হাসপাতাল-ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার প্রতারণার মাধ্যমে ব্যবসা চালিয়ে আসছে।

 

আরও