বিদেশগামী সব দেশের জন্য করোনা সার্টিফিকেট বাধ্যতামূলক নয়

করোনাভাইরাসের ভুয়া টেস্ট ধরা পড়ার ফলে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সকল বিদেশগামী যাত্রীকে করোনাভাইরাস পরীক্ষার সার্টিফিকেট নিতে হবে। মাত্র ১৮ দিন পরেই এ সিদ্ধান্তে পরিবর্তন এনেছে সরকার।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তি যে দেশে যাচ্ছেন সে দেশ যদি করোনা সার্টিফিকেট চায় তবেই নিতে হবে। তা না হলে সার্টিফিকেট ছাড়াই বিদেশ ভ্রমণ করতে পারবেন।

বৃহস্পতিবার বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেন, এখন শুধুমাত্র যে দেশ থেকে চাওয়া হবে শুধু সেই দেশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে এই সার্টিফিকেট নিলেই হবে।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবারই একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হয়েছে। যে বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আজকেই প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

এর আগে গত ১২ জুলাই সার্টিফিকেট সংগ্রহের বাধ্যবাধকতার ঘোষণা দেওয়া হলেও এক সপ্তাহ আগে নিয়মটি কার্যকর হয়। নিয়মটি কার্যকর হওয়ার দুই-তিন দিন পরই ভুয়া সনদের কারণে সাবেক নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খানের মেয়ে ঐশী খানকে লন্ডন যাওয়ার সময় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আটকে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় বেশ আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি। পরে ঐশী খানকে ভুল রিপোর্ট দেওয়ার দায় স্বীকার করে ল্যাব কর্তৃপক্ষ।

বিমানবন্দরে করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট দেখানো বাধ্যতামূলক করার পর এই কয়েক দিনেই ব্যাপক সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়েছে বিদেশগামীদের। কারণ সারা দেশে মোট ১৩ জেলার সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে ১৩টি বুথে বিদেশগামীদের নমুনা পরীক্ষার বুথ রয়েছে। আর ঢাকায় রয়েছে মাত্র একটি। ৪৮ ঘণ্টা আগে সেখানে নমুনা দেওয়ার কথা থাকলেও সময় মতো তা হাতে না পাওয়ায় অনেকেই ফ্লাইট ধরতে পারছিলেন না।

করোনা পরীক্ষার জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক বুথ না থাকার কারণে অনেকেই বিপাকে পড়েছেন। যাত্রীদের লম্বা লাইন দিতে হচ্ছিল। তাছাড়া যে সার্ভারে পরীক্ষার ফল আপলোড করতে হয়, সেটি প্রায়শই ডাউন থাকার কারণে দেরি হয়েছে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে। দুই দিন আগেও সার্ভার ডাউন থাকার কারণে চট্টগ্রাম থেকে ফ্লাইট ধরতে পারেননি বেশ কয়েকটি ফ্লাইটের অনেক যাত্রী।

 

আরও