জার্সি চেয়েছিলেন সেই ডেভিস, দিতে অস্বীকার করলেন মেসি

আলফনসো ডেভিস। বায়ার্ন মিউনিখের লেফট ব্যাক। কখনো কখনো লেফট উইঙ্গার হিসেবেও খেলেন। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সেলোনার বিপক্ষে ডেভিস যেভাবে খেলেছেন, তা দীর্ঘদিন মনে রাখবেন ফুটবল ভক্তরা। বিশেষ করে কিমিচকে দিয়ে যে গোলটি করিয়েছেন ডেভিস, সেটি তো আজীবন কেউ ভুলতে পারবেন না।

মাঝ মাঠ থেকে দুইজনের কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়েছিলেন। এরপর লেফট উইংয়ে বার্সার অন্যতম সেরা ডিফেন্ডার নেলসন সেমেদোকে স্রেফ বোকা বানিয়েছেন। এরপর বক্সের বাঁ-প্রান্ত ধরে বল নিয়ে এগিয়ে এসে তিন-চারজনের ফাঁক গলে যেভাবে গোলমুখে বলটি এনে ফেললেন, তা অবিশ্বাস্য-অসাধারণ। কিমিচ শুধু পাটা লাগিয়ে গোল করেছিলেন। সেই ম্যাচে বার্সা হেরেছিল ৮-২ গোলের বিশাল ব্যবধানে।

মোটকথা পুরো ম্যাচে ডেভিসের খেলা দেশে মুগ্ধ সবাই। কিন্তু ম্যাচ সেই কানাডিয়ান বিস্ময় ফুটবলারকেই হতাশ হয়ে মাঠ ছাড়তে হলো। কারণ, ম্যাচের পর লিওনেল মেসির সঙ্গে নিজের জার্সিটা বদল করতে চেয়েছিলেন ডেভিস। কিন্তু মেসি জার্সি বদল করতে অস্বীকার করেন। এমনকি ডেভিসকে পুরোপুরি এড়িয়ে চলে যান তিনি।

লিওনেল মেসি হচ্ছেন আলফনসো ডেভিসের একজন আইডল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সুবাধে সেই আইডলের বিপক্ষে খেলা যেন তার কাছে ছিল একটি স্বপ্ন। তার ভাবনা ছিল, ম্যাচের পর সার্জি বদল করে মেসির জার্সিটা নিয়ে নেবেন এবং নিজের কাছে স্যুভেনির হিসেবে আজীবনের জন্য রেখে দেবেন।

কিন্তু তার সেই আশা পূর্ণ হয়নি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে লিওঁকে হারিয়ে ফাইনালে ওঠার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আলফনসো ডেভিস বলেন, আমি মেসির সঙ্গে শার্ট বদল করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু মেসি তাতে রাজি হননি। আমার মনে হয় তিনি কিছুটা আপসেট ছিলেন। পরবর্তী কোনো সময়ে হবে হয়তো।

তবে, করোনাভাইরাসের কারণে ইউরোপিয়ান ফুটবলের অভিভাবক উয়েফা যে নীতি নির্ধারণ করেছে, তাতে ম্যাচের পর জার্সি বদল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এতে করে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে। এ কারণেও হয়তো মেসি জার্সি বদল করতে রাজি হননি। তারওপর তিনি ছিলেন ৮-২ গোলে হেরে পুরোপুরি বিধ্বস্ত। এমন একটি সময়ে নিজেকে ঠিক রাখাই তো কষ্টের কাজ।

 

আরও