রিফাত হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামিদের বিপক্ষে যুক্তিতর্ক শেষ করেছে রাষ্ট্রপক্ষ

রিফাত হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামিদের বিপক্ষে যুক্তিতর্ক শেষ করেছে রাষ্ট্রপক্ষ

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে যুক্তিতর্ক শেষ করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টায় শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমানের আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। ধার্য তারিখ থাকায় বরগুনা কারাগারের শিশু ইউনিট থেকে ৬ আসামি আদালতে হাজির করা হয়। একই সঙ্গে জামিনে থাকা ৮ আসামি আদালতে হাজির হন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন। আগামীকাল বুধবার থেকে আসামি পক্ষের আইনজীবীরা আসামিদের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবেন। আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তিখণ্ডন করবেন। তার পরে আদালত রায় এর দিন ধার্য করবে।

চলতি বছরের ৮ জানুয়ারি শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এর আগে গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক ২৪ জনের নামে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দাখিল করে তদন্তকারী কর্মকর্তা।

এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জন। ১৪ আসামির মধ্যে রিশান মো. রাশিদুল হাসান রিশান ওরফে রিশান ফরাজী (১৭), মো. রাকিবুল হাসান রিফাত হাওলাদার (১৫), মো. আবু আবদুল্লাহ ওরফে রায়হান (১৬), মো. ওলিউল্লাহ ওরফে অলি (১৬), জয় চন্দ্র সরকার ওরফে চন্দন (১৭), মো. নাইম (১৭), মো. তানভীর হোসেন (১৭), মো. নাজমুল হাসান (১৪), মো. রাকিবুল হাসান নিয়ামত (১৫), মো. সাইয়েদ মারুফ বিল্লাহ ওরফে মহিবুল্লাহ (১৭), মারুফ মল্লিক (১৭), প্রিন্স মোল্লা (১৫) ও রাতুল শিকদার জয়ের (১৬) বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ডে সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে ৩০২ এবং ৩৪ ধারায় অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত।

এছাড়া অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামি আরিয়ান হোসেন শ্রাবণের বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ডে ষড়যন্ত্র, সহযোগিতা এবং আসামিদের পালাতে সহায়তার অভিযোগে ৩০২ এবং ১২০ (বি) ১ এবং ২১২ ধারায় চার্জ গঠন করা হয়েছে।

অপর দিকে ৩০ সেপ্টেম্বর এই আলোচিত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির মধ্যে নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ পাঁচ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। এ মামলায় অপর চার আসামির অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত তাদের বেকসুর খালাস দিয়েছেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা বর্তমানে বরগুনা জেলা কারাগারে রয়েছেন।

মামলার রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবী মজিবুল হক কিসলু জানান, শিশু আদালতে দুই দিনে আসামিদের বিরুদ্ধে তাদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন। এরপরে আসামিপক্ষ তাদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবেন। আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তিখণ্ডন করবেন। তার পরে আদালত রায় এর দিন ধার্য করবে। আমরা আশা করি এই মামলায় আমরা ন্যায় বিচার পাব।

আসামি পক্ষের আইনজীবী মো. শাহজাহান বলেন, রাষ্ট্র পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষ আগামীকাল বুধবার আমরা যুক্তিতর্ক শুরু করবো। আমার দৃঢ় বিশ্বাস আমার আসামি আরিয়ান শ্রাবন ন্যায় বিচার পাবে। রিফাত হত্যার সময় আমার আসামি পরীক্ষার হলে ছিল।

গত বছরের ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে তার স্ত্রী মিন্নির সামনে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে নয়ন বন্ড ও তার সহযোগীরা। পরে রিফাত শরীফকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনার পর ওই দিন বিকেলে মারা যায়। পরদিন ২৭ জুন নিহত রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে বরগুনা থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

 

আরও