আর্জেন্টিনার বিপক্ষে খেলতে চায় না ব্রাজিল

দুই দলই কাতার বিশ্বকাপ নিশ্চিত করলেও ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার বাছাইপর্বে অসমাপ্ত ম্যাচটি নিয়ে জটিলতা বাড়ছে। মেসিদের পর এবার নেইমাররা সেই ম্যাচটা না খেলতে অনুরোধ করেছে ফিফার কাছে।

অসমাপ্ত সেই ম্যাচটা আগামী ২২ সেপ্টেম্বর মাঠে গড়ানোর কথা। সাও পাওলোয় অনুষ্ঠেয় সেই ম্যাচে অবশ্য বেশ কিছু অসুবিধা আছে। আনুষ্ঠানিক ম্যাচ হওয়ায় সেই ম্যাচে পাওয়া সব নিষেধাজ্ঞা বিশ্বকাপেও বহাল থাকবে। সেই ম্যাচে কেউ লাল কার্ড দেখলে বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের দুই ম্যাচে খেলা হবে না তার।

সে কারণে আর্জেন্টিনা দলের কোচ লিওনেল স্ক্যালোনিও এই ম্যাচে না খেলার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন বেশ কয়েকবার। সেজন্যে আর্জেন্টিনা আন্তর্জাতিক ক্রীড়া আদালতেও গিয়েছে। এবার জানা গেছে, ব্রাজিলও এই ম্যাচটা খেলতে আগ্রহী নয়।

বুধবার (১০ আগস্ট) রাতে এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানিয়েছে ব্রাজিল ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। সেখানে বলা হয়েছে, ‘কোচ তিতের অনুরোধ পাওয়ার পর আমরা এখন ম্যাচটা বাতিল করার চেষ্টা করব।’

এর আগে গত বছর ৫ সেপ্টেম্বর ব্রাজিলের মাটিতে খেলতে নেমেছিল আর্জেন্টিনা। তবে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া, জিওভানি লো চেলসো আর ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো ইংল্যান্ড থেকে আসায় তাদের জন্য ছিল নিয়মের কড়াকড়ি, থাকতে হতো কোয়ারেন্টাইনে। এর জেরে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের কারণে ম্যাচটা ৫ মিনিট খেলার পরই থেমে যায়, পরে আর তা মাঠে গড়ায়নি। সেই ম্যাচটাই এই বছর আয়োজনের কথা ছিল ব্রাজিলের। তবে সে ম্যাচে খেলবে যে দুই দল, সেই ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনাই এখন ম্যাচটা খেলতে চাইছে না।

এই ম্যাচ নিয়ে ব্রাজিল ফুটবলের সভাপতি এদনালদো রদ্রিগেজ বলেন, ‘এই ম্যাচ নিয়ে আমাদের কোচিং স্টাফের অবস্থানের পর আমরা ফিফার কাছে এই ম্যাচটা বাতিল করার অনুরোধ করব। কোচিং স্টাফদের সাহায্য করার জন্য সবকিছুই করব আমরা। আমাদের প্রধান লক্ষ্যটা হচ্ছে কাতারে ষষ্ঠ বিশ্বকাপটা জেতা। এই ম্যাচটা যেন না হয়, তার সব ধরনের চেষ্টাই করব আমরা।’

আর্জেন্টিনা ম্যাচটা খেলতে চাইছে না সাসপেনশন আর চোটাঘাতের ভয়ে। গতকাল ব্রাজিলের প্রকাশ করা সেই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সেই একই কারণে ম্যাচটা খেলতে চাচ্ছেন না কোচ তিতে।

 

আরও